ঢাকা ১০:২৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রিন্স ফিলিপ ছিলেন অসংখ্য তরুণের অনুপ্রেরণা: ব্রিটিশ প্রধান বরিস জনসন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:১০:১১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ এপ্রিল ২০২১ ১৮১ বার পড়া হয়েছে
ভয়েস একাত্তর অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ভয়েস ডিজিটাল ডেস্ক

ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের স্বামী ডিউক অব এডিনবরা প্রিন্স ফিলিপ ৯৯ বছর বয়সে মারা গিয়েছেন। তাঁর মৃত্যুর খবরে অত্যন্ত দুঃখ পেয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। প্রিন্স ফিলিপ ছিলেন অসংখ্য তরুণের অনুপ্রেরণা।

শুক্রবার বরিস জনসন বলেন, আমি অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে ডিউক অব এডিনবরা প্রিন্স ফিলিপের মৃত্যুর সংবাদটি পেয়েছি। প্রিন্স ফিলিপ শুধুমাত্র যুক্তরাজ্যের নয়, কমনওয়েলথভুক্ত দেশ ছাড়িয়ে বিশ্বের মানুষের ভালোবাসা অর্জন করেছেন।

তিনি রাজ পরিবার এবং রাজতন্ত্রকে সহায়তা করেছিলেন যাতে এটি আমাদের জাতীয় জীবনের ভারসাম্য এবং সুখের জন্য অবিসংবাদিতরূপে গুরুত্বপূর্ণ একটি সংস্থা হয়ে থাকে।

বাকিংহাম প্যালেস এক বিবৃতিতে জানায়, গভীর দুঃখের সঙ্গে রানি তার প্রিয় স্বামী প্রিন্স ফিলিপের মৃত্যুর ঘোষণা দিয়েছেন। উইন্ডসর ক্যাসেলে সকালে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

দীর্ঘ প্রায় এক মাস চিকিৎসার পর গত মাসের মাঝামাঝিতে হাসপাতাল ছেড়েছিলেন প্রিন্স ফিলিপ। ১৯৪৭ সালে প্রিন্সেস দ্বিতীয় এলিজাবেথের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তার প্রায় পাঁচ বছর পর রানি হন এলিজাবেথ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

প্রিন্স ফিলিপ ছিলেন অসংখ্য তরুণের অনুপ্রেরণা: ব্রিটিশ প্রধান বরিস জনসন

আপডেট সময় : ০৭:১০:১১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ এপ্রিল ২০২১

ভয়েস ডিজিটাল ডেস্ক

ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের স্বামী ডিউক অব এডিনবরা প্রিন্স ফিলিপ ৯৯ বছর বয়সে মারা গিয়েছেন। তাঁর মৃত্যুর খবরে অত্যন্ত দুঃখ পেয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। প্রিন্স ফিলিপ ছিলেন অসংখ্য তরুণের অনুপ্রেরণা।

শুক্রবার বরিস জনসন বলেন, আমি অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে ডিউক অব এডিনবরা প্রিন্স ফিলিপের মৃত্যুর সংবাদটি পেয়েছি। প্রিন্স ফিলিপ শুধুমাত্র যুক্তরাজ্যের নয়, কমনওয়েলথভুক্ত দেশ ছাড়িয়ে বিশ্বের মানুষের ভালোবাসা অর্জন করেছেন।

তিনি রাজ পরিবার এবং রাজতন্ত্রকে সহায়তা করেছিলেন যাতে এটি আমাদের জাতীয় জীবনের ভারসাম্য এবং সুখের জন্য অবিসংবাদিতরূপে গুরুত্বপূর্ণ একটি সংস্থা হয়ে থাকে।

বাকিংহাম প্যালেস এক বিবৃতিতে জানায়, গভীর দুঃখের সঙ্গে রানি তার প্রিয় স্বামী প্রিন্স ফিলিপের মৃত্যুর ঘোষণা দিয়েছেন। উইন্ডসর ক্যাসেলে সকালে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

দীর্ঘ প্রায় এক মাস চিকিৎসার পর গত মাসের মাঝামাঝিতে হাসপাতাল ছেড়েছিলেন প্রিন্স ফিলিপ। ১৯৪৭ সালে প্রিন্সেস দ্বিতীয় এলিজাবেথের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তার প্রায় পাঁচ বছর পর রানি হন এলিজাবেথ।