ঢাকা ০৭:৩৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কভিড-১৯ নিয়ে গবেষণার বিকল্প নেই কনক কান্তি বড়ুয়া

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:১৯:৩৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ ২৭৫ বার পড়া হয়েছে
ভয়েস একাত্তর অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ভয়েস ডিজিটাল ডেস্ক

কভিড-১৯ নিয়ে গবেষণার বিকল্প নেই উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেছেন, বিশ্বকে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে মুক্ত করতে এবং মানুষের জীবন বাঁচাতে করোনা নিয়ে গবেষণার কোনও বিকল্প নেই। সম্প্রতি বিএসএমএমইউ-তে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত গবেষণা প্রকল্পের আওতায় গবেষণা সংশ্লিষ্ট একটি অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

 

ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, করোনাভাইরাসের চরিত্রগত বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, ভাইরাসটি মানবদেহে কতক্ষণ বেঁচে থাকে, কীভাবে ছড়ায়, কোন ধরনের সমতলে কতক্ষণ টিকে থাকে, মানুষের দেহে কীভাবে এটি পরিবর্তিত হয়, আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা ও ভাইরাসটির প্রতিষেধক আবিষ্কারসহ বিভিন্ন দিক নিয়ে বিস্তর গবেষণার সুযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশসহ বিশ্ববাসীকে করোনার প্রাদুর্ভাব থেকে মুক্ত করতে এবং মানুষের জীবন বাঁচাতে করোনাভাইরাস নিয়ে গবেষণার বিকল্প নেই। আর সেজন্যই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন করোনাভাইরাস সংক্রান্ত গবেষণা প্রকল্প গ্রহণ করেছে। সেই প্রকল্পের আওতায় ভাইরাসটির বিভিন্ন দিক নিয়ে গবেষণার জন্য অনুদান প্রদান করা হয়েছে। ভাইরাসটি নিয়ে গবেষণার জন্য মোট ১৪ জন শিক্ষককে রিসার্চ গ্রান্ট প্রদান করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

কভিড-১৯ নিয়ে গবেষণার বিকল্প নেই কনক কান্তি বড়ুয়া

আপডেট সময় : ১০:১৯:৩৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১

ভয়েস ডিজিটাল ডেস্ক

কভিড-১৯ নিয়ে গবেষণার বিকল্প নেই উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেছেন, বিশ্বকে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে মুক্ত করতে এবং মানুষের জীবন বাঁচাতে করোনা নিয়ে গবেষণার কোনও বিকল্প নেই। সম্প্রতি বিএসএমএমইউ-তে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত গবেষণা প্রকল্পের আওতায় গবেষণা সংশ্লিষ্ট একটি অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

 

ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, করোনাভাইরাসের চরিত্রগত বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, ভাইরাসটি মানবদেহে কতক্ষণ বেঁচে থাকে, কীভাবে ছড়ায়, কোন ধরনের সমতলে কতক্ষণ টিকে থাকে, মানুষের দেহে কীভাবে এটি পরিবর্তিত হয়, আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা ও ভাইরাসটির প্রতিষেধক আবিষ্কারসহ বিভিন্ন দিক নিয়ে বিস্তর গবেষণার সুযোগ রয়েছে।

বাংলাদেশসহ বিশ্ববাসীকে করোনার প্রাদুর্ভাব থেকে মুক্ত করতে এবং মানুষের জীবন বাঁচাতে করোনাভাইরাস নিয়ে গবেষণার বিকল্প নেই। আর সেজন্যই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসন করোনাভাইরাস সংক্রান্ত গবেষণা প্রকল্প গ্রহণ করেছে। সেই প্রকল্পের আওতায় ভাইরাসটির বিভিন্ন দিক নিয়ে গবেষণার জন্য অনুদান প্রদান করা হয়েছে। ভাইরাসটি নিয়ে গবেষণার জন্য মোট ১৪ জন শিক্ষককে রিসার্চ গ্রান্ট প্রদান করা হয়েছে।