ঢাকা ০৩:১৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাগরিকা জামালীর কবিতা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:৫০:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মার্চ ২০২৩ ২৪৪ বার পড়া হয়েছে

ছবি সংগ্রহ

ভয়েস একাত্তর অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নি:সঙ্গ জলার গল্প

জলাটি খুবই নি:সঙ্গ বড়ই একা ।
চারিদিকের শ্যামলিমায় ঢাকা
জলাটি ভালবাসে ঠান্ডা ভোর
আর রোদেলা বিকেল !
ওর বুকে দাঁড়িয়ে একটি মূলীবাঁশ ।
সেই বাঁশের উপর রোজ উড়ে এসে বসে
এক ছোট্ট রঙীন মাছরাঙা ।
মাছরাঙাটিকে খুব ভালবাসে
সবুজ রঙের জলাটি !
দু’জনের বন্ধুত্ব হয় ভারী ! অবাক চোখে
মাছরাঙাটির সৌন্দর্য দেখে
শীতল সবুজ রঙের জলা !
পাখীটিকে আদর ক’রে খেতে দেয়
তার বুকের ভিতর সাঁতরে বেড়ানো
কিছু অস্থির মগ্নতা ভঙ্গকারী মাছ ।
মাছরাঙার ঠোঁট ওর শান্ত জল
স্পর্শ করে দিলে তার বুক জুড়ায় !
পুন্জীভুত মেঘ থেকে ঝরে পড়া
বৃষ্টি ধারা জলে খেলা করে–
জলা আর রঙীন মাছরাঙা ।
এমনি ভাবে কাটে তাদের বেলা —
তারপর ঘনিয়ে আসা সন্ধায় বন্ধুটিকে
বিদায় দিয়ে জলাটি খুব কাঁদে !
কেঁদে কেঁদে ভ’রে ওঠে ওর বুক–
ছোট্ট জলা, প্রতীক্ষা করে থাকে
আর একটি ভোরের জন্যে,
আর একটি রোদেলা বিকেলের জন্যে !!!

ব্রাডিয়াট সেন্টারে ১ঘন্টার গানের ছবি২০১১

জীবনভর কঠোর সংগ্রামী এবং প্রতিকূলতাকে অতিক্রম করতে সাহসিনী হার না মানা নারীর নাম সাগরীকা জামালী। রবীন্দ্র ভারতী থেকে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেছেন সুনামের সঙ্গে। অসম্ভব মেধাবী সাগরিকা বাংলাদেশের প্রতিথযশা রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পীই নন, একাধারি গবেষক, উপস্থাপক, বাচিক শিল্পী, সংগঠক এবং সমাজচিন্তিক। রবীন্দ্রনাথ নিয়ে অনর্গল বলে যেতে পারেন। রবীন্দ্র সঙ্গীতের প্রতিটি কোনায় কোনায় তার বিচরণ। প্রকৃতির মতো উদার তার কণ্ঠ। নিরহংকার শিল্পী নিজেকে কখনও অবলা ভাবেননি। নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার পেছনের অনুপ্রেরণা বাবা-মা। বিয়ের পর স্বামী তার পাশে দাঁড়িয়েছেন। সমাজের অস্বচ্ছল ও অবহেলিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সংকল্প মহিয়ষী করেছে তাকে। এই মানবিক গুণের কারণেই তিনি সমাজে শুভবোধের সারথি। তিনি মনে করেন ‘মানব সেবাই ধর্ম, কর্মই জীবন। এই দায়িত্ববোধ সমাজের সাম্য, শান্তি ও কল্যাণ বয়ে আনতে পারে। এই কর্তব্য পালনের মধ্য দিয়েই সমাজের মলিনতা দূর হয়। তার সীমিত সামর্থের মধ্যেই সেবাব্রত’র মন্ত্রে দু’বাহু বাড়িয়ে দিয়েছেন। তার দুয়ার সকাল-সন্ধ্যা-রাত অষ্টপ্রহরব্যাপী পিছিয়ে পড়া মানুষের জন্য খোলা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

সাগরিকা জামালীর কবিতা

আপডেট সময় : ০৯:৫০:২৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মার্চ ২০২৩

নি:সঙ্গ জলার গল্প

জলাটি খুবই নি:সঙ্গ বড়ই একা ।
চারিদিকের শ্যামলিমায় ঢাকা
জলাটি ভালবাসে ঠান্ডা ভোর
আর রোদেলা বিকেল !
ওর বুকে দাঁড়িয়ে একটি মূলীবাঁশ ।
সেই বাঁশের উপর রোজ উড়ে এসে বসে
এক ছোট্ট রঙীন মাছরাঙা ।
মাছরাঙাটিকে খুব ভালবাসে
সবুজ রঙের জলাটি !
দু’জনের বন্ধুত্ব হয় ভারী ! অবাক চোখে
মাছরাঙাটির সৌন্দর্য দেখে
শীতল সবুজ রঙের জলা !
পাখীটিকে আদর ক’রে খেতে দেয়
তার বুকের ভিতর সাঁতরে বেড়ানো
কিছু অস্থির মগ্নতা ভঙ্গকারী মাছ ।
মাছরাঙার ঠোঁট ওর শান্ত জল
স্পর্শ করে দিলে তার বুক জুড়ায় !
পুন্জীভুত মেঘ থেকে ঝরে পড়া
বৃষ্টি ধারা জলে খেলা করে–
জলা আর রঙীন মাছরাঙা ।
এমনি ভাবে কাটে তাদের বেলা —
তারপর ঘনিয়ে আসা সন্ধায় বন্ধুটিকে
বিদায় দিয়ে জলাটি খুব কাঁদে !
কেঁদে কেঁদে ভ’রে ওঠে ওর বুক–
ছোট্ট জলা, প্রতীক্ষা করে থাকে
আর একটি ভোরের জন্যে,
আর একটি রোদেলা বিকেলের জন্যে !!!

ব্রাডিয়াট সেন্টারে ১ঘন্টার গানের ছবি২০১১

জীবনভর কঠোর সংগ্রামী এবং প্রতিকূলতাকে অতিক্রম করতে সাহসিনী হার না মানা নারীর নাম সাগরীকা জামালী। রবীন্দ্র ভারতী থেকে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেছেন সুনামের সঙ্গে। অসম্ভব মেধাবী সাগরিকা বাংলাদেশের প্রতিথযশা রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পীই নন, একাধারি গবেষক, উপস্থাপক, বাচিক শিল্পী, সংগঠক এবং সমাজচিন্তিক। রবীন্দ্রনাথ নিয়ে অনর্গল বলে যেতে পারেন। রবীন্দ্র সঙ্গীতের প্রতিটি কোনায় কোনায় তার বিচরণ। প্রকৃতির মতো উদার তার কণ্ঠ। নিরহংকার শিল্পী নিজেকে কখনও অবলা ভাবেননি। নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার পেছনের অনুপ্রেরণা বাবা-মা। বিয়ের পর স্বামী তার পাশে দাঁড়িয়েছেন। সমাজের অস্বচ্ছল ও অবহেলিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সংকল্প মহিয়ষী করেছে তাকে। এই মানবিক গুণের কারণেই তিনি সমাজে শুভবোধের সারথি। তিনি মনে করেন ‘মানব সেবাই ধর্ম, কর্মই জীবন। এই দায়িত্ববোধ সমাজের সাম্য, শান্তি ও কল্যাণ বয়ে আনতে পারে। এই কর্তব্য পালনের মধ্য দিয়েই সমাজের মলিনতা দূর হয়। তার সীমিত সামর্থের মধ্যেই সেবাব্রত’র মন্ত্রে দু’বাহু বাড়িয়ে দিয়েছেন। তার দুয়ার সকাল-সন্ধ্যা-রাত অষ্টপ্রহরব্যাপী পিছিয়ে পড়া মানুষের জন্য খোলা।