ঢাকা ০৮:৫০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক উন্নয়নে কাজের সুযোগ পেয়ে আনন্দিত: বিক্রম দোরাইস্বামী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৫৪:২৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ৫ অক্টোবর ২০২০ ৫৩৭ বার পড়া হয়েছে
ভয়েস একাত্তর অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ভয়েস ডিজিটাল ডেস্ক

ভারতের নবনিযুক্ত হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বাংলাদেশ ভারতের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ বন্ধু মন্তব্য করে বলেছেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক উন্নয়নে কাজের সুযোগ পেয়ে তিনি খুবই আনন্দিত। ভারতের ত্রিপুরার আগরতলা থেকে সড়ক পথে বাংলাদেশ প্রান্তে এসে একথা বলেন। সোমবার বাংলাদেশের আখাউড়া সীমান্ত দিয়ে ঢাকার পথে রওয়ানা দেবার আগে সাংবাদিকদের বিক্রম দোরাইস্বামী বলেন, বাংলাদেশ ভারতের সবচেয়ে নিকটতম প্রতিবেশী দেশ। তিনি বাংলাদেশের প্রত্যাশার কথা শুনব এবং তা উভয় দেশের প্রধানমন্ত্রীকে তা অবহিত করব।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় ত্রিপুরার আগরতলায় পৌছান বিক্রম দোরাইস্বামী। সেখানে বাংলাদেশ-ভারত চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডস্ট্রিজের নেতৃবৃন্দ তাকে অভ্যর্থনা জানান। সেখানে ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন নবুনিযুক্ত হাইকমিশনার। বাংলাদেশের সঙ্গে উত্তর-পূর্ব ভারতের জলপথ ও বাণিজ্য নিয়ে আলোচনা করা হয়। এসময় তিনি উল্লেখ করেন, বাংলাদেশের সঙ্গে অংশীদারিত্ব বাড়ানো নিয়ে তিনি কাজ করে যাবেন। বিশেষ করে ভারতের উত্তর-পূর্ব রাজ্যগুলোর সঙ্গে দুই দেশের মৈত্রী বন্ধনটা গুরুত্বপূর্ণ। উত্তর-পূর্ব রাজ্যগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের নৌপথ, সড়ক ও বাণিজ্য প্রসার গুরুত্ব পাবে।

বাংলাদেশ-ভারত চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডস্ট্রিজের ত্রিপুরা চেপ্টারের সাধারণ সম্পাদক সুজিত রায় বলেন, চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহার করে ত্রিপুরা ও আসামে এবং দাউদকান্দি-সোনামুড়ায় ট্রায়াল রান সম্পন্ন হয়েছে। এই রুট দুটো দিয়ে যাতে করে নিয়মিত পণ্যপরিবাহিত হয়, সেই বিষয়টি গুরুত্ব দিতে হবে। রবিবার আগরতলায় কাটিয়ে সোমবার ঢাকার পথে রওনা দেন তিনি। আখাউড়া চেক পোস্টে ভারতীয় হাইকমিশনারকে স্বাগত জানান আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নূরে-এ-আলম, সহকারী পুলিশ সুপার (কসবা সার্কেল) মিজানুর রহমান, থানা অফিসার ইনচার্জ রসুল আহমেদ নিজামী প্রমুখ। প্রসঙ্গত, বিদায়ী ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাসের স্থলাভিষিক্ত হলেন বিক্রম দোরাইস্বামী। বাংলাদেশে হাই কমিশনার নিযুক্ত হওয়ার আগে ভারতের বিদেশ মন্ত্রকে অতিরিক্ত সচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক উন্নয়নে কাজের সুযোগ পেয়ে আনন্দিত: বিক্রম দোরাইস্বামী

আপডেট সময় : ০১:৫৪:২৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ৫ অক্টোবর ২০২০

ভয়েস ডিজিটাল ডেস্ক

ভারতের নবনিযুক্ত হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বাংলাদেশ ভারতের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ বন্ধু মন্তব্য করে বলেছেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক উন্নয়নে কাজের সুযোগ পেয়ে তিনি খুবই আনন্দিত। ভারতের ত্রিপুরার আগরতলা থেকে সড়ক পথে বাংলাদেশ প্রান্তে এসে একথা বলেন। সোমবার বাংলাদেশের আখাউড়া সীমান্ত দিয়ে ঢাকার পথে রওয়ানা দেবার আগে সাংবাদিকদের বিক্রম দোরাইস্বামী বলেন, বাংলাদেশ ভারতের সবচেয়ে নিকটতম প্রতিবেশী দেশ। তিনি বাংলাদেশের প্রত্যাশার কথা শুনব এবং তা উভয় দেশের প্রধানমন্ত্রীকে তা অবহিত করব।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যায় ত্রিপুরার আগরতলায় পৌছান বিক্রম দোরাইস্বামী। সেখানে বাংলাদেশ-ভারত চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডস্ট্রিজের নেতৃবৃন্দ তাকে অভ্যর্থনা জানান। সেখানে ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন নবুনিযুক্ত হাইকমিশনার। বাংলাদেশের সঙ্গে উত্তর-পূর্ব ভারতের জলপথ ও বাণিজ্য নিয়ে আলোচনা করা হয়। এসময় তিনি উল্লেখ করেন, বাংলাদেশের সঙ্গে অংশীদারিত্ব বাড়ানো নিয়ে তিনি কাজ করে যাবেন। বিশেষ করে ভারতের উত্তর-পূর্ব রাজ্যগুলোর সঙ্গে দুই দেশের মৈত্রী বন্ধনটা গুরুত্বপূর্ণ। উত্তর-পূর্ব রাজ্যগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের নৌপথ, সড়ক ও বাণিজ্য প্রসার গুরুত্ব পাবে।

বাংলাদেশ-ভারত চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডস্ট্রিজের ত্রিপুরা চেপ্টারের সাধারণ সম্পাদক সুজিত রায় বলেন, চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহার করে ত্রিপুরা ও আসামে এবং দাউদকান্দি-সোনামুড়ায় ট্রায়াল রান সম্পন্ন হয়েছে। এই রুট দুটো দিয়ে যাতে করে নিয়মিত পণ্যপরিবাহিত হয়, সেই বিষয়টি গুরুত্ব দিতে হবে। রবিবার আগরতলায় কাটিয়ে সোমবার ঢাকার পথে রওনা দেন তিনি। আখাউড়া চেক পোস্টে ভারতীয় হাইকমিশনারকে স্বাগত জানান আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নূরে-এ-আলম, সহকারী পুলিশ সুপার (কসবা সার্কেল) মিজানুর রহমান, থানা অফিসার ইনচার্জ রসুল আহমেদ নিজামী প্রমুখ। প্রসঙ্গত, বিদায়ী ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাসের স্থলাভিষিক্ত হলেন বিক্রম দোরাইস্বামী। বাংলাদেশে হাই কমিশনার নিযুক্ত হওয়ার আগে ভারতের বিদেশ মন্ত্রকে অতিরিক্ত সচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।