রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ০৫:০৮ পূর্বাহ্ন

করোনাকালীন সময়ে বড় অর্জন : বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ ছাড়ালো ৪৮ বিলিয়ন ডলার

ভয়েস রিপোর্ট, ঢাকা
  • প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৪ আগস্ট, ২০২১
  • ৯৩

ছবি: সংগৃহীত

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ’র দিক দিয়ে করোনাকালীন সময়েও বাংলাদেশের বড় অর্জন। এরই

মধ্যেই মঙ্গলবার রিজার্ভ মজুদ ছাড়ালো ৪৮ বিলিয়ন ডলার। কোন দেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতার

বিচারে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ হচ্ছে অন্যতম। এদিন প্রথমবারের মত বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ

৪৮ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গিয়েছে। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৪ লাখ ৮ হাজার ৩৬৫ কোটি

টাকা। করোনার এই কঠিন সময়ে এটাকে বড় অর্জন হিসেবে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা।

বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ বাড়ার অর্থ হলো দেশের অর্থনীতি শক্তিশালী হচ্ছে। আন্তর্জাতিক মানদণ্ড

অনুযায়ী, একটি দেশের কাছে অন্তত তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সমপরিমাণ বিদেশি

মুদ্রার মজুত থাকতে হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের এ রিজার্ভ দিয়ে কমপক্ষে ১০ মাসের আমদানি ব্যয়

পরিশোধ করা সম্ভব। ব্যাংকাররা বলছেন, সংকটে পড়লে এ রিজার্ভ অর্থনীতির গতি ধরে রাখতে

কাজে দেবে। আমদানি দায় মেটাতে সমস্যায় পড়তে হবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর কাজী ছাইদুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, দেশের

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪৮ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। দিন শেষে রিজার্ভ ৪৮ দশমিক ০৪

বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে।

প্রতি ডলার ৮৫ টাকা হিসেবে বৈদেশিক মুদ্রায় রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়ায় ৪ লাখ ৮ হাজার ৩৬৫

কোটি টাকা। অর্থাৎ চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটের অর্ধেকের বেশি। চলতি বছরে

বাজেটের আকার ৬ লাখ ৩ হাজার কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র অনুযায়ী, দেশের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম চলে এ বৈদেশিক মুদ্রার

রিজার্ভ দিয়ে। স্বর্ণ, বৈদেশিক মুদ্রা ও ডলার এ তিন ক্যাটেগরিতে বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার

রিজার্ভ রাখা হয় দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন ব্যাংকে। এই অর্থ বিভিন্ন দেশের বন্ড ও বিলে বিনিয়োগ

করা হয়। প্রতি বছর বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা কেনাবেচাও করে বাংলাদেশ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2017 voiceekattor
কারিগরি সহযোগিতায়: সোহাগ রানা
11223