বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৯:৪২ অপরাহ্ন

ডেল্টা-ডেল্টা প্লাস-এর বিরুদ্ধে সুপার ভ্যাকসিন-এর খোঁজ দিলেন বিজ্ঞানীরা

ভয়েস ডিজিটাল ডেস্ক
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৮ জুলাই, ২০২১
  • ৫৪ Time View

ছবি সংগ্রহ

করোনার নতুন ধরণ ডেল্টা থেকে ডেল্টা প্লাস নিয়ে গোটা বিশ্বে যখন উদ্বেগ বাড়ছে, তখনই স্বস্তির বার্তা দিলেন নর্থ ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের গিলিংস স্কুল অব গ্লোবাল পাবলিক হেলথের বিজ্ঞানীরা। বিজ্ঞানীদের দাবি তারা একটি হাইব্রিড ভ্যাকসিন তৈরি করেছেন। আর সেটি ‘সুপার ভ্যাকসিন’ করোনাভাইরাসের সবরকম রূপের বিরুদ্ধেই কার্যকর হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন।গবেষণার রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে সায়েন্স নামের একটি বিজ্ঞান ভিত্তিক জার্নালে। গিলিংস স্কুল অব গ্লোবাল পাবলিক হেলথের বিজ্ঞানীদের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করেছিলেন হাওয়ার্ড ইউজেস মেডিক্যালইনস্টিটিউট।

বর্তমান বিশ্বে ক্রমসই উদ্বেগ বাড়াচ্ছে করোনাভাইরাসের নতুন  রূপ।  ডেল্টা থেকে ডেল্টা প্লাস-চিন্তা বাড়াচ্ছে বিজ্ঞানীদের। প্রশ্ন উঠছে বর্তমানে যে টিকাগুলি ব্যবহার করা হচ্ছে সেগুলির কার্যকারিতা নিয়েও। এই পরিস্থিতিতে  আশার আলো দেখালেন  নর্থ ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের গিলিংস স্কুল অব গ্লোবাল পাবলিক হেলথের বিজ্ঞানীরা।

বিজ্ঞানীদের দাবি তাঁরা একটি হাইব্রিড ভ্যাকসিন তৈরি করেছেন। আর সেটি ‘সুপার ভ্যাকসিন’- করোনাভাইরাসের সবরকম রূপের বিরুদ্ধেই কার্যকর হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন।

বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে ভ্যাকসিন কার্যকর ভাবে ইঁদুরকে দেওয়া হয়েছিল। অ্যান্টিবডিগুলি আলাদা করা হয়েছিল। তাতে দেখা গেছে অ্যান্টিবডিগুলি একাধিক স্পাইক প্রোটিনের বিরুদ্ধে রীতিমত কার্যকর। এটিন দক্ষিণ আফ্রিকাতে প্রথম চিহ্নিত হওয়া B.1.351 এর বিরুদ্ধেও কার্যকর বলে দাবি করা হয়েছে।

বিজ্ঞানীদের দাবি তাঁদের তৈরি টিকাটি ইঁদুরকে শুধু কোভিড ১৯ এর বিরুদ্ধেই নয়। অন্যান্য Group 2B করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধেইও সুরক্ষা দিচ্ছে। শরীরের মধ্যেই অ্যান্টিবডি তৈরি করতে সক্ষম হচ্ছে।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, সার্স কোভি২ করোনাভাইরাসের সঙ্গে আরও  করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেওয়ার জন্যই তাঁরা টিকাটি তৈরি করার চেষ্টা করেছিলেন। প্রাণী থেকে মানুষের শরীরে করোনা সংক্রমণ রুখে দেওয়ার জন্যই তাঁরা এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন।

গিলিংস স্কুল অব গ্লোবাল পাবলিক হেলথের বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, টিকা নিয়ে তাঁরা যথেষ্টই আশাবাদী। তাঁরা মনে করছেন তাঁদের তৈরি টিকাটি সবরকম করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সক্ষম। আর সেক্ষেত্রে তাঁরা আগামী দিনে সবরকম করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর এজাতীয় ইউনিভার্সাল করোনা টিকা তৈরির কথাও চিন্তাভাবনা করছেন।

 

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন আরও কিছু পরীক্ষা বাকি রয়েছে। আগামী বছর থেকে তাঁদের তৈরি টিকার হিউম্যান ট্রায়াল শুরু করা যেতে পারে। এখনও পর্যন্ত এটি ইঁদুরের ওপর প্রয়োগ করা হয়েছে। তাতে দেখা গেছে তাঁদের তৈরি টিকাটি প্রয়োগের পর ইঁদুরগুলি সংক্রমণ রুখতে পেরেছে। আর ফুসফুসের ক্ষতিও প্রতিরোধ করতে পেরেছে।

গবেষণার রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে সায়েন্স নামের একটি বিজ্ঞান ভিত্তিক জার্নালে। গিলিংস স্কুল অব গ্লোবাল পাবলিক হেলথের বিজ্ঞানীদের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করেছিলেন হাওয়ার্ড ইউজেস মেডিক্যালইনস্টিটিউট।

গবেষক দলের শীর্ষস্থানীয় নেতৃত্ব জানিয়েছেন, কোভিড ১৯এর ভ্যাকসিনগুলির প্রথম প্রজন্মের কার্যকারিতা পরীক্ষা করার পরে দ্বিতীয় প্রজন্মের ভ্যাকসিন তৈরি তাঁদের লক্ষ্য ছিল। তাঁদের গবেষণাকে সমর্থন করেছে ন্যাশানাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ অ্যান্ড নর্থ ক্যারোলাইনা পলিসি কোলাবোটারির ন্যাশানালান ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2017 voiceekattor
কারিগরি সহযোগিতায়: সোহাগ রানা
11223