বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ১১:১৫ অপরাহ্ন

মোটরযান চুক্তি : বাংলাদেশ-ভারত বাণিজ্যের নয়া হাত ছানি

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৯ মার্চ, ২০২১
  • ৮৯ Time View

“বিশ্বব্যাংকের সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বাণিজ্যের জন্য নিরবচ্ছিন্ন যানবাহন চলাচল নিশ্চিত করতে পারলে ভারতের জাতীয় আয় ৮ শতাংশ এবং বাংলাদেশের জাতীয় আয় ১৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেতে পারে”

 

ভয়েস রিপোর্ট, ঢাকা

২০১৫ সালের জুন মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঐতিহাসিক স্থলসীমান্ত চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। একই মাসে মোটরযান চুক্তিও (এমভিএ) স্বাক্ষরিত হয়েছিল। যেখানে স্থলসীমান্ত চুক্তি দুই দেশের সীমান্তকে আরও নিরাপদ করেছে, সেখানে মোটর যানবাহন চুক্তিটি একটি সম্ভাব্য অর্থনৈতিক করিডোরে রূপান্তরিত করবে। কোভিড-১৯ মহামারীর পর প্রধানমন্ত্রী মোদীর প্রথম আন্তর্জাতিক সফর হচ্ছে ঢাকায়। এটি নিছক কাকতালীয় কোন ঘটনা নয়।

 

ভারত বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করছে এবং সেই সাথে উভয় দেশের মধ্যে বছরের নিবিড় সহযোগিতা এবং কূটনৈতিক সম্পর্কেরও ৫০ বছর পূর্ণ হচ্ছে। প্রোটোকলগুলি চূড়ান্ত হয়ে গেলে এই মোটরযান চুক্তি বাংলাদেশ ও ভারতের বাণিজ্যে যুগান্তকারী পরিবর্তন আনবে।

বিশ্বব্যাংকের সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বাণিজ্যের জন্য নিরবচ্ছিন্ন যানবাহন চলাচল নিশ্চিত করতে পারলে ভারতের জাতীয় আয় ৮ শতাংশ এবং বাংলাদেশের জাতীয় আয় ১৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেতে পারে।


বাংলাদেশের পণ্যগুলির জন্য ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোতে একটি বিশাল অব্যবহৃত বাজার রয়েছে, যেখানে সাশ্রয়ী মূল্যে ও কম সময়ে পণ্য পরিবহণ সম্ভব। ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে স্বাক্ষরিত মোটরযান চুক্তির রূপরেখা প্রণয়নকারী সাম্প্রতিক সমঝোতা স্মারকটি বাংলাদেশ ও ভারতের জন্য একটি প্রভাব বর্ধনকারী বিষয় চূড়ান্ত করার পক্ষে গুরুত্বপূর্ণ।

এটি দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা আরও অনেক সহজ করে তুলবে। যেহেতু ভারত থেকে পণ্যবাহী যানবাহনগুলো ট্রান্সশিপমেন্টের জন্য সীমান্তে অপেক্ষা না করে সরাসরি বাংলাদেশে গন্তব্যে যেতে পারবে। ফলে সীমান্ত বাণিজ্যে সময় সাশ্রয়ীর পাশাপাশি ব্যয় উভয়ই হ্রাস পাবে। দুই প্রতিবেশী বিশ্বব্যাপী পঞ্চম দীর্ঘ সীমান্ত ভাগ করে নিলেও এবং মানুষে মানুষে নিবিড় সম্পর্ক থাকা সত্ত্বেও ভারতের কোনও প্রতিষ্ঠানের পক্ষে বাংলাদেশের কোনও প্রতিষ্ঠানের তুলনায় ব্রাজিল বা জার্মানির প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ব্যবসা করা প্রায় ১৫ থেকে ২০ শতাংশ কম ব্যয়বহুল।

ইতোমধ্যে ৯ বিলিয়ন ডলারের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যের সঙ্গে উভয় দেশের পরিবহণ নেটওয়ার্ক সংহত করার ফলে বাণিজ্যের পরিমাণ ১৫ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছার সম্ভাবনা রয়েছে। এটি আমাদের শ্রমবাজার এবং সামাজিক খাতের সম্পদসমূহকে আরও সংহত করার একটি সুযোগ উন্মুক্ত করবে। তাতে মাথাপিছু আয়, জরুরী ওষুধ সরবরাহ, প্রাকৃতিক দুর্যোগের ত্রাণ সহায়তা ইত্যাদি ক্ষেত্রে বহুগুণে বৃদ্ধি পেতে পারে।

মোটরযান চুক্তি ভারত ও বাংলাদেশের মতন ভৌগোলিক নৈকট্য, কূটনৈতিক ঐকমত্য এবং বিশিষ্ট ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক সম্পর্কযুক্ত দু’টি দেশের অর্থনৈতিক সহযোগিতার জন্য তাৎপর্যপূর্ণ সুযোগও সৃষ্টি করে। চুক্তিটি চূড়ান্ত হয়ে গেলে তা আন্তর্জাতিক সীমান্তের ওপারে কার্গো এবং যাত্রীবাহী যানবাহনকে প্যাসেজ সরবরাহ করবে। এর সফল প্রয়োগ করা হলে সীমান্তে ট্রাফিক পরিচালনা করা সহজ হবে। কারণ, এর সঙ্গে প্রচুর পেপারওয়ার্ক জড়িত এবং যানজট পরিবেশ ও পণ্যের জন্য ক্ষতিকারক। তদুপরি, একই সঙ্গে পরিবহণের বিভিন্ন পদ্ধতি যেমন রেলপথ, বিমানপথ এবং নৌপথ ব্যবহারের ফলে চুক্তিটি সারাদেশে বাণিজ্য সহজ করতে পারে।


সংস্কৃতিতে অবিশ্বাস্যরকম সাদৃশ্যপূর্ণ দুটি দেশ-ভারত ও বাংলাদেশের জন্য কল্পনাতীত অর্থনৈতিক একীকরণের সুযোগ রয়েছে। মোটরযান চুক্তি উভয় দেশে বিভিন্ন প্রকল্প চালু করার সঠিক সুযোগ তৈরি করবে যা দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের সকল দেশের উন্নয়নে গতি সঞ্চার করবে। ভারতীয় হাইকশিনের তথ্য সহায়তায় প্রতিবেদনটি তৈরি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2017 voiceekattor
কারিগরি সহযোগিতায়: সোহাগ রানা
11223