ঢাকা ১০:০৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সাবার আগে জীবন কষ্ট হলেও ঘরে থাকুন : শেখ হাসিনা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:৪১:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১ ১৫৯ বার পড়া হয়েছে
ভয়েস একাত্তর অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

‘আমরা চলিব পশ্চাতে ফেলি পচা অতীত। গিরি গুহা ছাড়ি খোলা প্রান্তরে গাহিব গীত। সৃজিব জগৎ বিচিত্রতর বীর্যবান। তাজা জীবন্ত সে নব সৃষ্টি শ্রম-মহান’

নিজস্ব প্রতিনিধি, ঢাকা

বর্ষবরণ বাঙালির সর্বজনীন উৎসব উল্লেখ করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সবার আগে মানুষের জীবন। তাই লকডাউনে ঘরে থাকুন। বেঁচে থাকলে ফের সবকিছু গুছিয়ে নেওয়া যাবে। তিনি বলেন, গত বছর একটানা ৬২ দিন সাধারণ ছুটি ছিল।

এখনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলেনি। বিদেশের সঙ্গে চলাচল স্বাভাবিক হয়নি। এই অবস্থায় শুধু দেশে নয়, বিশ্বের যেখানেই এই মরণঘাতী ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ছে, জীবন রক্ষায় সেখানেই এ ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন। পাশাপাশি লকডাউনে ঘরে বসে বাংলা নববর্ষ পয়লা বৈশাখ উদযাপনের পরামর্শ দিয়েছেন শেখ হাসিা। বুধবার বাংলাদেশে পালিত হবে বাংলা নববর্ষ। মঙ্গলবার  সন্ধ্যায় জাতির জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা।

বাংলাদেশে প্রথম রমজান থেকেই শুরু হচ্ছে লকডাউন। সবাইকে নববর্ষের শুভেচ্ছার পাশাপাশি সব ধর্মপ্রাণ মুসলমানকে পবিত্র মাহে রমজানের মোবারকবাদ জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী পরিস্থিতির ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেন, যুগে যুগে মহামারি আসে। আসে নানা ঝড়ঝঞ্ঝা, দুর্যোগ-দুর্বিপাক। এসব মোকাবিলা করেই মানবজাতিকে টিকে থাকতে হয়। জীবনের চলার পথ মসৃণ নয়। তবে পথ যত কঠিনই হোক, আমাদের তা জয় করে এগিয়ে যেতে হবে।

এরপর জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ভাষায় বলেন, আমরা চলিব পশ্চাতে ফেলি পচা অতীত। গিরি গুহা ছাড়ি খোলা প্রান্তরে গাহিব গীত। সৃজিব জগৎ বিচিত্রতর বীর্যবান। তাজা জীবন্ত সে নব সৃষ্টি শ্রম-মহান।’

নববর্ষ উদযাপনের বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, গত বছরের মতো এ বছরও আমরা বাইরে কোনো অনুষ্ঠান করতে পারছি না। কারণ, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ নতুন করে আঘাত হেনেছে সারা দেশে। দ্বিতীয় ঢেউয়ের করোনাভাইরাস আরও মরণঘাতী হয়ে আবির্ভূত হয়েছে।

পয়লা বৈশাখের আনন্দ তাই গত বছরের মতো এবারও ঘরে বসেই উপভোগ করব আমরা।
এসময় তিনি বলেন, গত এক সপ্তাহে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ প্রবল আকার ধারণ করলে মানুষের চলাচলের ওপর কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। কোনোভাবেই সংক্রমণ ঠেকানো যাচ্ছে না।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে আমাদের আরও কিছু কঠোর ব্যবস্থা নিতে হচ্ছে। আমি জানি, এর ফলে অনেকেরই জীবন-জীবিকায় অসুবিধা হবে। কিন্তু আমাদের সবাইকেই মনে রাখতে হবে, মানুষের জীবন সর্বাগ্রে। বেঁচে থাকলে আবার সবকিছু গুছিয়ে নেয়া যাবে।

শেখ হআসিনা বলেন, গত বছর করোনাভাইরাস আঘাত হানার পর নানাবিধ বিরূপ পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হয়েছে। এই মহামারি প্রতিরোধে যেহেতু মানুষের সঙ্গনিরোধ অন্যতম উপায়, সে জন্য কিছু পদক্ষেপ নিতে হয়েছে। যার ফলে মানুষের জীবন-জীবিকার ওপর প্রভাব পড়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণ বাঙালির সর্বজনীন উৎসব।

আবহমানকাল ধরে বাংলার গ্রাম-গঞ্জে, আনাচে-কানাচে এই উৎসব পালিত হয়ে আসছে। গ্রামীণ মেলা, হালখাতা, বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলার আয়োজন ছিল বর্ষবরণের মূল অনুসঙ্গ। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ব্যবসায়ীরা আগের বছরের দেনা-পাওনা আদায়ের জন্য আয়োজন করতেন হালখাতা উৎসবের।

গ্রামীণ পরিবারগুলো মেলা থেকে সারা বছরের জন্য প্রয়োজনীয় তৈজষপত্র কিনে রাখতেন। গৃহস্থ বাড়িতে রান্না হতো সাধ্যমত উন্নতমানের খাবারের। ১৯৬০’র দশকের শেষভাগে ঢাকায় নাগরিক পর্যায়ে ছায়ানটের উদ্যোগে সীমিত আকারে বর্ষবরণ শুরু হয়। আমাদের মহান স্বাধীনতার পর ধীরে ধীরে এই উৎসব নাগরিক জীবনে প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে।

১৯৮০’র দশকে পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বাঙালির অসাম্প্রদায়িক এবং গণতান্ত্রিক চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটতে থাকে। মূলত আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক দল এবং সংগঠনসমূহের কর্মী-সমর্থকদের অব্যাহত প্রচেষ্টার ফলেই আজকের এই অবস্থান। কালক্রমে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান এখন শুধু আনন্দ-উল্লাসের উৎসব নয়, এটি বাঙালি সংস্কৃতির একটি শক্তিশালী ধারক-বাহক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, পয়লা বৈশাখ আমাদের সকল সঙ্কীর্ণতা, কুপমণ্ডুকতা পরিহার করে উদারনৈতিক জীবন-ব্যবস্থা গড়তে উদ্বুদ্ধ করে। আমাদের মনের ভিতরের সকল ক্লেদ, জীর্ণতা দূর করে আমাদের নতুন উদ্যোমে বাঁচার অনুপ্রেরণা দেয়। আমরা যে বাঙালি, বিশ্বের বুকে এক গর্বিত জাতি, পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণে আমাদের মধ্যে এই স্বাজাত্যবোধ এবং বাঙালিয়ানা নতুন করে প্রাণ পায়, উজ্জীবিত হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

সাবার আগে জীবন কষ্ট হলেও ঘরে থাকুন : শেখ হাসিনা

আপডেট সময় : ০৮:৪১:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১

‘আমরা চলিব পশ্চাতে ফেলি পচা অতীত। গিরি গুহা ছাড়ি খোলা প্রান্তরে গাহিব গীত। সৃজিব জগৎ বিচিত্রতর বীর্যবান। তাজা জীবন্ত সে নব সৃষ্টি শ্রম-মহান’

নিজস্ব প্রতিনিধি, ঢাকা

বর্ষবরণ বাঙালির সর্বজনীন উৎসব উল্লেখ করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সবার আগে মানুষের জীবন। তাই লকডাউনে ঘরে থাকুন। বেঁচে থাকলে ফের সবকিছু গুছিয়ে নেওয়া যাবে। তিনি বলেন, গত বছর একটানা ৬২ দিন সাধারণ ছুটি ছিল।

এখনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলেনি। বিদেশের সঙ্গে চলাচল স্বাভাবিক হয়নি। এই অবস্থায় শুধু দেশে নয়, বিশ্বের যেখানেই এই মরণঘাতী ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ছে, জীবন রক্ষায় সেখানেই এ ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন। পাশাপাশি লকডাউনে ঘরে বসে বাংলা নববর্ষ পয়লা বৈশাখ উদযাপনের পরামর্শ দিয়েছেন শেখ হাসিা। বুধবার বাংলাদেশে পালিত হবে বাংলা নববর্ষ। মঙ্গলবার  সন্ধ্যায় জাতির জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে এসব কথা বলেন শেখ হাসিনা।

বাংলাদেশে প্রথম রমজান থেকেই শুরু হচ্ছে লকডাউন। সবাইকে নববর্ষের শুভেচ্ছার পাশাপাশি সব ধর্মপ্রাণ মুসলমানকে পবিত্র মাহে রমজানের মোবারকবাদ জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী পরিস্থিতির ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেন, যুগে যুগে মহামারি আসে। আসে নানা ঝড়ঝঞ্ঝা, দুর্যোগ-দুর্বিপাক। এসব মোকাবিলা করেই মানবজাতিকে টিকে থাকতে হয়। জীবনের চলার পথ মসৃণ নয়। তবে পথ যত কঠিনই হোক, আমাদের তা জয় করে এগিয়ে যেতে হবে।

এরপর জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ভাষায় বলেন, আমরা চলিব পশ্চাতে ফেলি পচা অতীত। গিরি গুহা ছাড়ি খোলা প্রান্তরে গাহিব গীত। সৃজিব জগৎ বিচিত্রতর বীর্যবান। তাজা জীবন্ত সে নব সৃষ্টি শ্রম-মহান।’

নববর্ষ উদযাপনের বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, গত বছরের মতো এ বছরও আমরা বাইরে কোনো অনুষ্ঠান করতে পারছি না। কারণ, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ নতুন করে আঘাত হেনেছে সারা দেশে। দ্বিতীয় ঢেউয়ের করোনাভাইরাস আরও মরণঘাতী হয়ে আবির্ভূত হয়েছে।

পয়লা বৈশাখের আনন্দ তাই গত বছরের মতো এবারও ঘরে বসেই উপভোগ করব আমরা।
এসময় তিনি বলেন, গত এক সপ্তাহে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ প্রবল আকার ধারণ করলে মানুষের চলাচলের ওপর কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। কোনোভাবেই সংক্রমণ ঠেকানো যাচ্ছে না।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে আমাদের আরও কিছু কঠোর ব্যবস্থা নিতে হচ্ছে। আমি জানি, এর ফলে অনেকেরই জীবন-জীবিকায় অসুবিধা হবে। কিন্তু আমাদের সবাইকেই মনে রাখতে হবে, মানুষের জীবন সর্বাগ্রে। বেঁচে থাকলে আবার সবকিছু গুছিয়ে নেয়া যাবে।

শেখ হআসিনা বলেন, গত বছর করোনাভাইরাস আঘাত হানার পর নানাবিধ বিরূপ পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হয়েছে। এই মহামারি প্রতিরোধে যেহেতু মানুষের সঙ্গনিরোধ অন্যতম উপায়, সে জন্য কিছু পদক্ষেপ নিতে হয়েছে। যার ফলে মানুষের জীবন-জীবিকার ওপর প্রভাব পড়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণ বাঙালির সর্বজনীন উৎসব।

আবহমানকাল ধরে বাংলার গ্রাম-গঞ্জে, আনাচে-কানাচে এই উৎসব পালিত হয়ে আসছে। গ্রামীণ মেলা, হালখাতা, বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলার আয়োজন ছিল বর্ষবরণের মূল অনুসঙ্গ। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ব্যবসায়ীরা আগের বছরের দেনা-পাওনা আদায়ের জন্য আয়োজন করতেন হালখাতা উৎসবের।

গ্রামীণ পরিবারগুলো মেলা থেকে সারা বছরের জন্য প্রয়োজনীয় তৈজষপত্র কিনে রাখতেন। গৃহস্থ বাড়িতে রান্না হতো সাধ্যমত উন্নতমানের খাবারের। ১৯৬০’র দশকের শেষভাগে ঢাকায় নাগরিক পর্যায়ে ছায়ানটের উদ্যোগে সীমিত আকারে বর্ষবরণ শুরু হয়। আমাদের মহান স্বাধীনতার পর ধীরে ধীরে এই উৎসব নাগরিক জীবনে প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে।

১৯৮০’র দশকে পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বাঙালির অসাম্প্রদায়িক এবং গণতান্ত্রিক চেতনার বহিঃপ্রকাশ ঘটতে থাকে। মূলত আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক দল এবং সংগঠনসমূহের কর্মী-সমর্থকদের অব্যাহত প্রচেষ্টার ফলেই আজকের এই অবস্থান। কালক্রমে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান এখন শুধু আনন্দ-উল্লাসের উৎসব নয়, এটি বাঙালি সংস্কৃতির একটি শক্তিশালী ধারক-বাহক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, পয়লা বৈশাখ আমাদের সকল সঙ্কীর্ণতা, কুপমণ্ডুকতা পরিহার করে উদারনৈতিক জীবন-ব্যবস্থা গড়তে উদ্বুদ্ধ করে। আমাদের মনের ভিতরের সকল ক্লেদ, জীর্ণতা দূর করে আমাদের নতুন উদ্যোমে বাঁচার অনুপ্রেরণা দেয়। আমরা যে বাঙালি, বিশ্বের বুকে এক গর্বিত জাতি, পয়লা বৈশাখের বর্ষবরণে আমাদের মধ্যে এই স্বাজাত্যবোধ এবং বাঙালিয়ানা নতুন করে প্রাণ পায়, উজ্জীবিত হয়।