ঢাকা ০৬:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বিক্রয় উন্মোচন করলো প্রপার্টি বেচাকেনার তথ্যভিত্তিক ওয়েবসাইট ‘প্রপার্টি গাইড বাংলাদেশ শীর্ষস্থান হারালেন সাকিব, র‌্যাংকিংয়ে হৃদয়-তানজিদ-মুস্তাফিজের উন্নতি ত্বক ও চুলের যত্নে নিম পাতার ব্যবহার এপেক্সে নারী-পুরুষ নিয়োগ, কর্মস্থল ঢাকা আড়ংয়ে নারী-পুরুষ নিয়োগ, কর্মস্থল ঢাকা রোহিঙ্গাদের জন্য বিশ্বব্যাংক ৭০০ মিলিয়ন ডলার দিচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়ায় ‘মলমূত্র’ বহনকারী বেলুন পাঠাচ্ছে উত্তর কোরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: তৃতীয় ধাপে বিজয়ী যারা প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল রেমালে ক্ষতিগ্রস্ত পটুয়াখালীর কলাপাড়া পরিদর্শন করবেন বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর বিদেশে বিনোয়োগের ৭০% ভারতে, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য

সম্পর্ক জোরদারে একমত পোষণ করেছে ঢাকা-দিল্লী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:০৯:০৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২১ ২৪৪ বার পড়া হয়েছে
ভয়েস একাত্তর অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

বিশেষ প্রতিনিধি, ঢাকা

ঢাকা-দিল্লি সম্পর্ক জোরদারে একমঞ্চে দাঁড়িয়ে কাজ করার অঙ্গিকারে পুর্নব্যক্ত করা হয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে সহযোগিতার সম্পর্ক জোরদার আরও শানিত হবে। এজন্য একই ছাতার নীচে দাঁড়িয়ে কাজ করতে ঢাকা-দিল্লি। ভারতের রাজধানী নতুন দিল্লীতে বাংলাদেশ-ভারতের বিদেশ সচিব পর্যায়ের বৈঠকে এবিষয়ে উভয়পক্ষ একমত হয়েছে। ভারতের বিদেশমন্ত্রক এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে। আগামী মার্চে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী ঢাকা সফরের আগে স্বরাষ্ট্র, বাণিজ্য এবং জলসম্পদ সচিবদের বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৈঠকে দুই দেশের মধ্যে কোভিড ভ্যাকসিন, বাণিজ্য, কানেক্টিটিভিটি, বিদ্যুৎ-জ্বালানি, পানি বণ্টন ইত্যাদি বিষয়ে সহযোগিতা নিয়েও বিস্তর আলোচনা হয়।


আগামী ২৬ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং মুজিববর্ষ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বাংলাদেশ বিদেশ সচিব মাসুদ বিন মোমেন এবং ভারতের বিদেশ সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা নিজ নিজ দেশের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। বৈঠকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী, দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সহযোগিতার সম্পর্ক জোরদারে উভয়পক্ষ একমত হয়েছেন।


বিদেশ সচিব মাসুদ বিন মোমেন চারদিনের সফরে বৃহস্পতিবার দিল্লি পৌছেন। ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফর চূড়ান্তে এবারের দিল্লি সফরে প্রাধান্য পাচ্ছে। ভারতের বিদেশ সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা গত ১৮ আগস্ট ঢাকায় এসেছিলেন। সে সময় বিদেশ সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে তিনি দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন। গত ডিসেম্বরে বিদেশ সচিব মাসুদ বিন মোমেন দিল্লি সফরে যেতে চেয়েছিলেন। করোনা আক্রান্ত হওয়ায় সফর বাতিল হয়।
নয়াদিল্লিতে ভারত ও বাংলাদেশ বৈদেশিক অফিস পরামর্শ (এফওসি) অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ভারতের বিদেশ সচিব শ্রী হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা এবং বাংলাদেশ পক্ষের বিদেশ সচিব রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। বাংলাদেশের বিদেশ সচিবের সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশ হাই কমিশনার এইচ, ই, মোহাম্মদ ইমরান, সচিব (পূর্ব) রাষ্ট্রদূত মাশফি শামস এবং বাংলাদেশের বিদেশ, বাণিজ্য ও জল সম্পদ মন্ত্রকের প্রতিনিধিরা। ভারতীয় প্রতিনিধি দলে ছিলেন বিদেশ, স্বরাষ্ট্র, বাণিজ্য ও শিল্প, জল শক্তি এবং অর্থ মন্ত্রকের প্রতিনিধিবৃন্দ। উভয় পক্ষই কোভিড -১৯ সহযোগিতা, বাণিজ্য, সংযোগ, উন্নয়ন অংশীদারি, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও জল সম্পদ, আঞ্চলিক ও বহুপাক্ষিক সহযোগিতা পাশাপাশি সীমান্ত সুরক্ষা ও প্রতিরক্ষা সহযোগিতা পরিচালনাসহ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে প্রাপ্ত অগ্রগতির ব্যাপক পর্যালোচনা করেছেন।


এই প্রসঙ্গে, উভয় পক্ষ ২০২১ সালের প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে বাংলাদেশ ত্রি-পরিষেবা মার্চিং কন্টিনে অংশ নেওয়ার জন্য তাদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে। উভয় পক্ষই ১৯৭১ সালের বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতীয় ও বাংলাদেশ বাহিনী এবং জনগণের ত্যাগ ও ত্যাগের বিষয়ে উভয় দেশের বর্তমান প্রজন্মকে স্মরণ করিয়ে দেওয়ার জন্য এই অনুষ্ঠানের তাৎপর্য উল্লেখ করেছে। রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন নয়াদিল্লিতে অবস্থানকালে বর্তমানে বিজ্ঞান ভবনে প্রদর্শিত বাঘু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী পরিদর্শন করবেন এবং সুসমা স্বরাজ স্বরাষ্ট্র ইনস্টিটিউটে বিদেশি সেবা প্রশিক্ষণার্থীদের সাথে মতবিনিময় করবেন।
দ্বিপক্ষীয় উন্নয়নের অংশীদারিত্বের মধ্যে লাইন অব ক্রেডিটের দ্রুত প্রয়োগের গুরুত্ব উল্লেখ ককরা হয়। উচ্চ পর্যায়ের উন্নয়ন অংশীদারিত্ব নিরীক্ষণ প্রক্রিয়া ৩ জানুয়ারী, ২০২১ এ অনুষ্ঠিত তার প্রথম বৈঠকের মাধ্যমে কার্যকর হয়েছিল বলে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। পাশাপাশি উভয় পক্ষ তহবিলের ব্যবহার বাড়ানো এবং অনুমোদনের প্রক্রিয়াগুলিকে সহজতর ও ত্বরান্বিত করার উপর জোর দেন।
উল্লেখ্য, এফওসি কোভিড-১৯ সত্ত্বেও ধারাবাহিকভাবে অব্যাহত রেখে দ্বিপক্ষীয় বিনিময়গুলিতে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে। দু’পক্ষের সম্প্রতিক বৈঠকগুলিতে নোট নিয়েছিল যে ১৭ ডিসেম্বর ২০২০ ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলনের পরে, ৫১ তম বিএসএফ – বিজিবি মহাপরিচালক স্তরের ২২-২৬ ডিসেম্বর, ২০২০-এ গুয়াহাটিতে আলোচনা হয়েছে, যৌথ নদী কমিশনের কারিগরি স্তরের বৈঠক জানুয়ারী ০৬, ২০২১, ১২ জানুয়ারী, ২০২১-এ প্রথম পুলিশ প্রধানদের সংলাপ এবং ২৩ শে জানুয়ারী, ২০২১ সালে বিদ্যুৎ খাতের সহযোগিতা সম্পর্কিত ১৯ তম সচিব-স্তরের যুগ্ম পরিচালন কমিটির বৈঠক। দ্বিতীয় ভারত-বাংলাদেশ কনস্যুলার সংলাপ জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২৮, ২০২১ নয়াদিল্লিতে। উভয় পক্ষই মার্চ ২০২১ শীর্ষ সম্মেলনের আগে পরবর্তী স্বরাষ্ট্রসচিব পর্যায়ের আলোচনা, বাণিজ্যসচিব স্তরের আলোচনা এবং যৌথ নদী কমিশনের সচিব স্তরের বৈঠক করার বিষয়ে একমত হন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

সম্পর্ক জোরদারে একমত পোষণ করেছে ঢাকা-দিল্লী

আপডেট সময় : ০৩:০৯:০৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২১

বিশেষ প্রতিনিধি, ঢাকা

ঢাকা-দিল্লি সম্পর্ক জোরদারে একমঞ্চে দাঁড়িয়ে কাজ করার অঙ্গিকারে পুর্নব্যক্ত করা হয়েছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে সহযোগিতার সম্পর্ক জোরদার আরও শানিত হবে। এজন্য একই ছাতার নীচে দাঁড়িয়ে কাজ করতে ঢাকা-দিল্লি। ভারতের রাজধানী নতুন দিল্লীতে বাংলাদেশ-ভারতের বিদেশ সচিব পর্যায়ের বৈঠকে এবিষয়ে উভয়পক্ষ একমত হয়েছে। ভারতের বিদেশমন্ত্রক এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে। আগামী মার্চে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী ঢাকা সফরের আগে স্বরাষ্ট্র, বাণিজ্য এবং জলসম্পদ সচিবদের বৈঠকের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বৈঠকে দুই দেশের মধ্যে কোভিড ভ্যাকসিন, বাণিজ্য, কানেক্টিটিভিটি, বিদ্যুৎ-জ্বালানি, পানি বণ্টন ইত্যাদি বিষয়ে সহযোগিতা নিয়েও বিস্তর আলোচনা হয়।


আগামী ২৬ মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং মুজিববর্ষ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বাংলাদেশ সফরের প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বাংলাদেশ বিদেশ সচিব মাসুদ বিন মোমেন এবং ভারতের বিদেশ সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা নিজ নিজ দেশের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। বৈঠকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী, দুই দেশের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে সহযোগিতার সম্পর্ক জোরদারে উভয়পক্ষ একমত হয়েছেন।


বিদেশ সচিব মাসুদ বিন মোমেন চারদিনের সফরে বৃহস্পতিবার দিল্লি পৌছেন। ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফর চূড়ান্তে এবারের দিল্লি সফরে প্রাধান্য পাচ্ছে। ভারতের বিদেশ সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা গত ১৮ আগস্ট ঢাকায় এসেছিলেন। সে সময় বিদেশ সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে তিনি দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন। গত ডিসেম্বরে বিদেশ সচিব মাসুদ বিন মোমেন দিল্লি সফরে যেতে চেয়েছিলেন। করোনা আক্রান্ত হওয়ায় সফর বাতিল হয়।
নয়াদিল্লিতে ভারত ও বাংলাদেশ বৈদেশিক অফিস পরামর্শ (এফওসি) অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ভারতের বিদেশ সচিব শ্রী হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা এবং বাংলাদেশ পক্ষের বিদেশ সচিব রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। বাংলাদেশের বিদেশ সচিবের সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশ হাই কমিশনার এইচ, ই, মোহাম্মদ ইমরান, সচিব (পূর্ব) রাষ্ট্রদূত মাশফি শামস এবং বাংলাদেশের বিদেশ, বাণিজ্য ও জল সম্পদ মন্ত্রকের প্রতিনিধিরা। ভারতীয় প্রতিনিধি দলে ছিলেন বিদেশ, স্বরাষ্ট্র, বাণিজ্য ও শিল্প, জল শক্তি এবং অর্থ মন্ত্রকের প্রতিনিধিবৃন্দ। উভয় পক্ষই কোভিড -১৯ সহযোগিতা, বাণিজ্য, সংযোগ, উন্নয়ন অংশীদারি, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও জল সম্পদ, আঞ্চলিক ও বহুপাক্ষিক সহযোগিতা পাশাপাশি সীমান্ত সুরক্ষা ও প্রতিরক্ষা সহযোগিতা পরিচালনাসহ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে প্রাপ্ত অগ্রগতির ব্যাপক পর্যালোচনা করেছেন।


এই প্রসঙ্গে, উভয় পক্ষ ২০২১ সালের প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে বাংলাদেশ ত্রি-পরিষেবা মার্চিং কন্টিনে অংশ নেওয়ার জন্য তাদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে। উভয় পক্ষই ১৯৭১ সালের বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতীয় ও বাংলাদেশ বাহিনী এবং জনগণের ত্যাগ ও ত্যাগের বিষয়ে উভয় দেশের বর্তমান প্রজন্মকে স্মরণ করিয়ে দেওয়ার জন্য এই অনুষ্ঠানের তাৎপর্য উল্লেখ করেছে। রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন নয়াদিল্লিতে অবস্থানকালে বর্তমানে বিজ্ঞান ভবনে প্রদর্শিত বাঘু-বাপু ডিজিটাল প্রদর্শনী পরিদর্শন করবেন এবং সুসমা স্বরাজ স্বরাষ্ট্র ইনস্টিটিউটে বিদেশি সেবা প্রশিক্ষণার্থীদের সাথে মতবিনিময় করবেন।
দ্বিপক্ষীয় উন্নয়নের অংশীদারিত্বের মধ্যে লাইন অব ক্রেডিটের দ্রুত প্রয়োগের গুরুত্ব উল্লেখ ককরা হয়। উচ্চ পর্যায়ের উন্নয়ন অংশীদারিত্ব নিরীক্ষণ প্রক্রিয়া ৩ জানুয়ারী, ২০২১ এ অনুষ্ঠিত তার প্রথম বৈঠকের মাধ্যমে কার্যকর হয়েছিল বলে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। পাশাপাশি উভয় পক্ষ তহবিলের ব্যবহার বাড়ানো এবং অনুমোদনের প্রক্রিয়াগুলিকে সহজতর ও ত্বরান্বিত করার উপর জোর দেন।
উল্লেখ্য, এফওসি কোভিড-১৯ সত্ত্বেও ধারাবাহিকভাবে অব্যাহত রেখে দ্বিপক্ষীয় বিনিময়গুলিতে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে। দু’পক্ষের সম্প্রতিক বৈঠকগুলিতে নোট নিয়েছিল যে ১৭ ডিসেম্বর ২০২০ ভার্চুয়াল শীর্ষ সম্মেলনের পরে, ৫১ তম বিএসএফ – বিজিবি মহাপরিচালক স্তরের ২২-২৬ ডিসেম্বর, ২০২০-এ গুয়াহাটিতে আলোচনা হয়েছে, যৌথ নদী কমিশনের কারিগরি স্তরের বৈঠক জানুয়ারী ০৬, ২০২১, ১২ জানুয়ারী, ২০২১-এ প্রথম পুলিশ প্রধানদের সংলাপ এবং ২৩ শে জানুয়ারী, ২০২১ সালে বিদ্যুৎ খাতের সহযোগিতা সম্পর্কিত ১৯ তম সচিব-স্তরের যুগ্ম পরিচালন কমিটির বৈঠক। দ্বিতীয় ভারত-বাংলাদেশ কনস্যুলার সংলাপ জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২৮, ২০২১ নয়াদিল্লিতে। উভয় পক্ষই মার্চ ২০২১ শীর্ষ সম্মেলনের আগে পরবর্তী স্বরাষ্ট্রসচিব পর্যায়ের আলোচনা, বাণিজ্যসচিব স্তরের আলোচনা এবং যৌথ নদী কমিশনের সচিব স্তরের বৈঠক করার বিষয়ে একমত হন।