ঢাকা ০৭:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাখাইনে প্রদেশে বিদ্রোহী হামলায় মায়ানমার সেনার অন্তত ৮০ জওয়ান নিহত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:৫৩:৫৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০২ বার পড়া হয়েছে

ফাইল ছবি

ভয়েস একাত্তর অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

ভয়েস ডিজিটাল ডেস্ক

বাংলাদেশের কক্সবাজার লাগোয়া মায়ানমারের রাখাইন প্রদেশের অধিকাংশ এলাকা দখলের পাশাপাশি মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) জুন্টা সরাকারের বাহিনীর অন্তত ৮০ জন অফিসার এবং জওয়ানকে হত্যার দাবি করা হচ্ছে। প্রাণ বাঁচাতে বেশ কিছু সেনা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা করছে বলে জানা গিয়েছে।

বিদ্রোহী আরাকান আর্মি এক বিবৃতিতে দাবি করেছে, শনিবার রাত থেকে শুরু হওয়া লড়াইয়ে নিহত সেনাদের পাশাপাশি বিপুল অস্ত্র ও গোলাবারুদ দখলে নিয়েছে তারা। দখল করেছে রামরি দ্বীপের মূল শহর এবং আশপাশের সব গ্রামগুলি।

প্রসঙ্গত, মায়ানমারের তিন বিদ্রোহী গোষ্ঠী— ‘তাঙ ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি’ (টিএনএলএ), ‘আরাকান আর্মি’ (এএ) এবং ‘মায়ানমার ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স আর্মি’ (এমএনডিএএ)-র জোট ‘ব্রাদারহুড অ্যালায়্যান্স’ নভেম্বর থেকে সে দেশের সামরিক জুন্টা সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে আসছে। অভিযানের পোশাকি নাম ‘অপারেশন ১০২৭’।

বিদ্রোহী তিন গোষ্ঠীর জোট ব্রাদারহুড অ্যালায়্যান্স, গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী আউং সান সু চির সমর্থক স্বঘোষিত সরকার ‘ন্যাশনাল ইউনিটি গভর্নমেন্ট’-এর সশস্ত্র বাহিনী ‘পিপলস ডিফেন্স ফোর্স’ (পিডিএফ) এবং রাখাইন প্রদেশে সক্রিয় সশস্ত্র জনজাতি বাহিনী আরাকান আর্মি শনিবার রাত থেকে শুরু হওয়া হামলায় অংশ নেয় বলে মায়ানমারের নির্বাসিত গণতন্ত্রপন্থী সরকারের সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর। সূত্র আনন্দবাজার

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

রাখাইনে প্রদেশে বিদ্রোহী হামলায় মায়ানমার সেনার অন্তত ৮০ জওয়ান নিহত

আপডেট সময় : ০৭:৫৩:৫৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

 

ভয়েস ডিজিটাল ডেস্ক

বাংলাদেশের কক্সবাজার লাগোয়া মায়ানমারের রাখাইন প্রদেশের অধিকাংশ এলাকা দখলের পাশাপাশি মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) জুন্টা সরাকারের বাহিনীর অন্তত ৮০ জন অফিসার এবং জওয়ানকে হত্যার দাবি করা হচ্ছে। প্রাণ বাঁচাতে বেশ কিছু সেনা সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা করছে বলে জানা গিয়েছে।

বিদ্রোহী আরাকান আর্মি এক বিবৃতিতে দাবি করেছে, শনিবার রাত থেকে শুরু হওয়া লড়াইয়ে নিহত সেনাদের পাশাপাশি বিপুল অস্ত্র ও গোলাবারুদ দখলে নিয়েছে তারা। দখল করেছে রামরি দ্বীপের মূল শহর এবং আশপাশের সব গ্রামগুলি।

প্রসঙ্গত, মায়ানমারের তিন বিদ্রোহী গোষ্ঠী— ‘তাঙ ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি’ (টিএনএলএ), ‘আরাকান আর্মি’ (এএ) এবং ‘মায়ানমার ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স আর্মি’ (এমএনডিএএ)-র জোট ‘ব্রাদারহুড অ্যালায়্যান্স’ নভেম্বর থেকে সে দেশের সামরিক জুন্টা সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে আসছে। অভিযানের পোশাকি নাম ‘অপারেশন ১০২৭’।

বিদ্রোহী তিন গোষ্ঠীর জোট ব্রাদারহুড অ্যালায়্যান্স, গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী আউং সান সু চির সমর্থক স্বঘোষিত সরকার ‘ন্যাশনাল ইউনিটি গভর্নমেন্ট’-এর সশস্ত্র বাহিনী ‘পিপলস ডিফেন্স ফোর্স’ (পিডিএফ) এবং রাখাইন প্রদেশে সক্রিয় সশস্ত্র জনজাতি বাহিনী আরাকান আর্মি শনিবার রাত থেকে শুরু হওয়া হামলায় অংশ নেয় বলে মায়ানমারের নির্বাসিত গণতন্ত্রপন্থী সরকারের সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর। সূত্র আনন্দবাজার