সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৫৪ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌবন্দর ব্যবহারে ভারত আগ্রহী

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১৪৩ Time View

ভয়েস রিপোর্ট, ঢাকা

বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ নৌবন্দর ব্যবহারে ভারতের আগ্রহ রয়েছে। তার জন্য বিদ্যমান নৌপথের বেশকিছু জায়গায় নাব্যতা বৃদ্ধিতে ড্রেজিং জরুরি। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট কিছু নীতিমালার সংস্কার প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী।

সমুদ্র পথে ঢাকা থেকে দিল্লিতে পণ্য পরিবহনের খরচ অত্যন্ত বেশি, যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। তবে, তা কমিয়ে আনতে উভয় দেশের ব্যবসায়ী সমাজকে নিজ নিজ দেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনার পরামর্শও দেন ভারতের হাইকমিশনার। ডিসিসিআই সভাপতি রিজওয়ান রাহমান বলেছেন, ভারতের দিল্লিতে বাংলাদেশের রপ্তানিমুখী পণ্য সমুদ্র পথে পরিবহনের খরচ যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের চেয়েও তুলনামূলক বেশি। যা উভয় দেশের বাণিজ্য সম্প্রারণের অন্যতম প্রতিবন্ধকতা হিসেবে দেখছেন তিনি। একই সঙ্গে স্থলবন্দর সমূহের অবকাঠমো উন্নয়নে গুরুত্ব দিয়েছেন এই ব্যবসায়ী।

মঙ্গলবার ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) কার্যালয়ে সংগঠনের সভাপতি রিজওয়ান রাহমানের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় ভারতীয় হাইকমিশনার এসব কথা বলেন। সভায় ডিসিসিআইর পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় দোরাইস্বামী কাক্সিক্ষত মাত্রায় ভারতীয় বিনিয়োগ বাংলাদেশে আকর্ষণ এবং এ দেশের বিনিয়োগ সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর জন্য উভয় দেশের ব্যবসায়ীদের একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান।
দোরাইস্বামী বলেন, বেনাপোল এবং পেট্রপোলসহ বাংলাদেশের সকল স্থলবন্দর সমূহের ভৌত অবকাঠামো এবং প্রযুক্তিগত সুযোগ-সুবিধার উন্নয়ন আবশ্যক। কারণ, এ ধরনের সেবার অনুপস্থিতির কারণে পণ্য পরিবহনে দীর্ঘসূত্রিতার ফলে ব্যবসা পরিচালন ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। পণ্য পরিবহনে রেলপথ ব্যয় সাশ্রয়ী হওয়ায় বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার পণ্য আমদানি-রপ্তানিতে রেল পথের ব্যবহার বাড়ানোর ওপর জোরা দেন তিনি। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশের রেল ব্যবস্থাপনার সক্ষমতা বাড়ানোর আহ্বান জানানোর পাশাপাশি সিরাজগঞ্জে রেলওয়ের একটি কনন্টেইনার ডিপো স্থাপনেরও প্রস্তাব করেন দোরাইস্বামী।

ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশে উৎপাদিত ভোজ্যতেল অথবা আমাদানিকৃত ভোজ্যতেলের কমপক্ষে ২০ শতাংশ মূল্য সংযোজন করা সম্ভব হলে, তা ভারতে রপ্তানি করতে কোনো বাধা নেই। তিনি বলেন, বিশেষ করে বাংলাদেশের ভোগ্যপণ্য সহ অন্যান্য পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে বিএসটিআইর সনদের সত্যয়ন যেন ভারতে গ্রহণযোগ্য হয়, তা নিয়ে ভারত সরকার কাজ করছে এবং এ বিষয়ে ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া সম্ভব হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2017 voiceekattor
কারিগরি সহযোগিতায়: সোহাগ রানা
11223