রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ০৫:৫০ পূর্বাহ্ন

বঙ্গবন্ধুর ক্যারিশম্যাটিক নেতৃত্ব দীর্ঘদিনের লালিত স্বাধীনতা অর্জনে সাহায্য করে : ড. মোমেন

ভয়েস রিপোর্ট, ঢাকা
  • প্রকাশ: শনিবার, ২৮ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৭৭৫

বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ক্যারিশম্যাটিক নেতৃত্ব এবং সংগ্রাম আমাদের দীর্ঘদিনের লালিত স্বাধীনতা অর্জনে সাহায্য করেছে। শোকের এই মাসে, দুঃখভারাক্রান্ত হৃদয়ে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের মর্মান্তিক ঘটনাটি স্মরণ করেন এবং এই দুর্ভাগ্যজনক রাতে

জাতির পিতার সঙ্গে যারা নির্মমভাবে নিহত হয়েছিলেন, তাদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান। শনিবার বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ

(বিআইআইএসএস) আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ: একটি জাতির উদ্ভব ও মুক্তির শিরোনাম’ আলোচনা সভায় প্রধানঅতিথির বক্তব্যে একথা বলেন, বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

ড. মোমেন বলেন, ১৯৪৭ সালে যখন ভারত ধর্মের ভিত্তিতে দুটি আধিপত্যে বিভক্ত হয়েছিল এবং পূর্ব পাকিস্তানের জন্ম হয়েছিল, বঙ্গবন্ধু তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের জন্য একটি ধর্মনিরপেক্ষ, সমতাবাদী এবং গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার স্বপ্ন দেখেছিলেন। পরবর্তীতে, ১৯৪৭

থেকে ১৯৫২ পর্যন্ত ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে শেখ মুজিব সঠিক প্রমাণিত হন। কারণ মাতৃভাষার ইস্যুতে বাঙালি জাতীয়তাবাদ স্পষ্টভাবে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জনগণকে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পাকিস্তানের দুটি ডানা ১২০০ মাইল দূরে পৃথক করেছে। পাকিস্তানের সঙ্গে একত্রে

বসবাসের সময়, বঙ্গবন্ধু তার পাকিস্তানী নেতৃত্বের দ্বারা পূর্ব পাকিস্তানের বৈষম্য এবং শোষণের স্থায়ীত্ব উপলব্ধি করেননি, তিনি জনপ্রিয় আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন যা তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের শোষিত মানুষের জনপ্রিয় আকাক্সক্ষা প্রতিফলিত করে। তার ঐতিহাসিক ৬দফা

দাবি-বাংলাদেশের ‘ম্যাগনা কার্টা’। বিষয়গুলো ছিল সুস্পষ্ট, অনুধাবন করা সহজ এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, বাঙালির অনুভূতির সত্যিকারের প্রতিফলন।

‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ: একটি জাতির উদ্ভব ও মুক্তির মহাকাব্য’ ওয়েবিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম, অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি, রাষ্ট্রদূত এম ফজলুল

করিম, বিআইআইএসএস-এর চেয়ারম্যান, মেজর জেনারেল মো এমদাদ উল বারী, এনডিসি, পিএসসি, বিআইআইএসএস-এর মহাপরিচালক, ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ

ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের বঙ্গবন্ধু চেয়ার প্রফেসর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক ড. আতিউর রহমান।

ড. মোমেন বলেন, আগস্ট মাস আমাদের জন্য শোকের মাস। শোকের মাসে বঙ্গবন্ধুর ওপর কথা বলার জন্য এইরকম ইভেন্টে যোগদান করা, যখন এটি আমার হৃদয়কে গভীর বিষাদে ভরে দেয়, একই সঙ্গে, আমাদের জন্য অনুপ্রেরণার একটি বড় উৎস। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর

রহমানের অটল ও অকুতোভয় নেতৃত্বে ‘বাংলাদেশ নামক স্বাধীন জাতি রাষ্ট্রের’ উদ্ভব কিভাবে হয়েছিল সে সম্পর্কে আমরা সত্যিই অনেক কিছু জানতে পেরেছি।

ড. মোমেন বলেন, বন্ধু প্রফেসর ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেনের কাছ থেকে ইতিহাসের পাঠ শোনা আমার জন্য সবসময়ই আকর্ষণীয়। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা

তুলে ধরেছিলেন। এছাড়া অপর উপস্থাপক ড. আতিউর রহমানের কাছ থেকেও শুনেছি। যিনি বাঙালি জাতিকে মুক্ত করার ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর জীবনব্যাপী সংগ্রাম এবং দূরদর্শী নেতৃত্ব সম্পর্কে স্পষ্টভাবে অবহিত করেছিলেন।

আজকের বিশেষ অতিথি পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলমের কথাও শুনেছি, যিনি আমাদের সঙ্গে শেয়ার করেছেন কিভাবে বঙ্গবন্ধু বাঙালির রাজনৈতিক স্বাধীনতা ও অর্থনৈতিক

মুক্তির আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। বিশিষ্ট বক্তাদের মূল্যবান চিন্তা ও অন্তর্দৃষ্টিপূর্ণ ধারণা জানতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত।

ড. মোমেন বলেন, ওয়েবিনারে একই শিরোনামের বইটির উদ্বোধনে অংশ নিতে পেরে আমিও আনন্দিত। এটা খুবই আনন্দের যে, ইওওঝঝ এর মত থিংক-ট্যাঙ্কগুলি স্বাধীনতা যুদ্ধ এবং জাতির

পিতার উপর গবেষণা উৎসাহিত করছে। আমি লক্ষ্য অর্জনের ক্ষেত্রে তার কূটনৈতিক পরিপক্কতা প্রমাণ না করে একটি বুলেট না খেয়ে সংলাপ ও আলোচনা এবং আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তার

প্রতিবেশী ভারত এবং মিয়ানমার উভয়ের সঙ্গে কঠিন সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কৃতিত্বের বিষয়ে বিআইআইএসএসকে সুপারিশ করতে পারি।

বাংলাদেশ, বাঙালি জাতিসত্তা, এবং বঙ্গবন্ধু অবিচ্ছেদ্য এ বিষয়ে কোনো বিভ্রান্তি থাকা উচিত নয় উল্লেখ করেন ড. এ কে আদুল মোমেন উদাহরণস্বরূপ তুলে ধরেন বলেন, আমি ব্যাখ্যা করি যে

কিভাবে বাঙালির জাতিসত্তার ধারণাটি বঙ্গবন্ধুর সক্ষম ও নিরলস নেতৃত্বে সিমেন্টেড হয়েছিল। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের বর্তমান বাংলাদেশের মানুষ রাজনৈতিকভাবে গণতান্ত্রিক,

সাংস্কৃতিকভাবে ধর্মনিরপেক্ষ, এবং বহুত্ববাদী এবং অর্থনৈতিকভাবে সমতাভিত্তিক একটি স্বাধীন ভূমিকে লালন করে।

তারা এমন নেতৃত্বের আকাক্সক্ষা করেছিল যা তাদেরকে পরাধীনতা ও অত্যাচারের শিকল থেকে মুক্ত করতে সক্ষম। সাধারণ মানুষের নেতা বঙ্গবন্ধু সহজেই জনগণের স্পন্দন অনুধাবন করতে পারতেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2017 voiceekattor
কারিগরি সহযোগিতায়: সোহাগ রানা
11223