ঢাকা ০৩:৫৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঢাকায় মৈত্রী দিবস উদযাপন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:০৮:৫৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৪৭ বার পড়া হয়েছে
ভয়েস একাত্তর অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা

ঢাকায় মৈত্রী দিবস উদযাপন করেছে ভারতীয় হাইকমিশন। ১৯৭১ সালের এই দিনেই ভারত বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন, সার্বভৌম দেশ হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দেয়।

স্বাধীন বাংলাদেশে ৬ ডিসেম্বর মৈত্রী দিবস হিসাবে উদযাপন করা হয়ে আসছে। এদিনের গুলশানের ভারতীয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় ভার্মা তার ভাষণে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে গভীর ও ঐতিহাসিক সম্পর্কের কথা তুলে ধরেন।

 

তিনি জোর দিয়ে বলেন যে মৈত্রী দিবস সমতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধা এবং অটুট সংহতির মূলে থাকা অংশীদারিত্বের উদ্ভবকে নির্দেশ করে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রতি ভারতের অবিচল সমর্থনের প্রতীক এবং গর্বের মুহূর্ত।

মৈত্রী দিবস উদযাপনে বাংলাদেশের বিশিষ্ট শিল্পীদের বিভিন্ন পরিবেশনায় ভারত ও বাংলাদেশের সমৃদ্ধ ও বৈচিত্র্যময় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে শাস্ত্রীয় ও লোকনৃত্য, সঙ্গীত ও আবৃত্তি ছিল। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের লোকনৃত্য গোষ্ঠী জলের গান অংশ নেয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published.

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

ঢাকায় মৈত্রী দিবস উদযাপন

আপডেট সময় : ০৪:০৮:৫৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা

ঢাকায় মৈত্রী দিবস উদযাপন করেছে ভারতীয় হাইকমিশন। ১৯৭১ সালের এই দিনেই ভারত বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন, সার্বভৌম দেশ হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দেয়।

স্বাধীন বাংলাদেশে ৬ ডিসেম্বর মৈত্রী দিবস হিসাবে উদযাপন করা হয়ে আসছে। এদিনের গুলশানের ভারতীয় সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় ভার্মা তার ভাষণে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে গভীর ও ঐতিহাসিক সম্পর্কের কথা তুলে ধরেন।

 

তিনি জোর দিয়ে বলেন যে মৈত্রী দিবস সমতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধা এবং অটুট সংহতির মূলে থাকা অংশীদারিত্বের উদ্ভবকে নির্দেশ করে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রতি ভারতের অবিচল সমর্থনের প্রতীক এবং গর্বের মুহূর্ত।

মৈত্রী দিবস উদযাপনে বাংলাদেশের বিশিষ্ট শিল্পীদের বিভিন্ন পরিবেশনায় ভারত ও বাংলাদেশের সমৃদ্ধ ও বৈচিত্র্যময় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য প্রদর্শন করা হয়। অনুষ্ঠানে শাস্ত্রীয় ও লোকনৃত্য, সঙ্গীত ও আবৃত্তি ছিল। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের লোকনৃত্য গোষ্ঠী জলের গান অংশ নেয়।